মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

Capture_0

 

 

 

 

 

 

 

 

মুন্সীগঞ্জ জেলা কারাগারে প্রদেয় বন্দী সেবা সমুহ

১। খাদ্য সরবরাহ :    কারাগারে অবস্থানরত সকল বন্দীকে প্রতিদিন ৩ বেলা নির্ধারিত পরিমাণ খাদ্য সরবরাহ করা হয়ে থাকে ।

২। চিকিৎসা সেবা:      কারাগারে অবস্থানরত অসুস্থ্য বন্দীদের কারা হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে  বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ সরবরাহ করা হয় । প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অসুস্থ্য   বন্দীদের মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সমূহে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে । হাসপাতালে   ভর্তিরত বন্দিদের চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী  পথ্য সরবরাহ করা হয় । 

৩। শিক্ষা সেবা :       অবস্থানরত নিরক্ষর বন্দীদের জন্য স্বাক্ষরতা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এ ছাড়া গণ শিক্ষা , ধর্মীয় শিক্ষা, এবং নৈতিক শিক্ষা প্রদান করা হয়ে থাকে। ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এর সমযোগীতায় কারাগারে এই সেবা কর্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

৪। বন্দী দেখা সাক্ষাত :   বন্দীরা তাদের আত্নীয় স্বজন এবং আইনজীবির আবেদনের প্রেক্ষিতে দেখা করার সুযোগ পেয়ে থাকে।

৫। আইনি সহায়তা :   কারাগারে আটক আর্থিক ভাবে অসচ্ছল এবং অসহায় বন্দীদের  আইনি সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বিনামূল্যে সরকারী উকিল প্রাপ্তির আবেদন পত্র জেলা লিগ্যাল কমিটি বরাবরে প্রেরন করা হয়ে থাকে। এ ছাড়া কারা কর্তৃপক্ষ বন্দীর আদালত কর্তৃক প্রদত্ত্ সাজার বিপরীতে আপীল করতে চাইলে বিনা খরচে জেল আপীলের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে।

৬। লাইব্রেরী সেবা :  কারাভ্যন্তরে বন্দীদের জন্য একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরী আছে। যেখানে  উপন্যাস, প্রবন্ধ এবং ধর্মীয় পুস্তক রয়েছে। আগ্রহী বন্দীগন বিনামূল্যে কারা লাইব্রেরী থেকে বই সংগ্রহ করে পড়তে পারে।

৯। মাদক সেবনে নিরুৎসাহিত করাঃ   বন্দীদের মাদকের কুফল সম্পর্কে সচেতন করার লক্ষ্যে শপথ পাঠ,প্রার্থনা বা ইবাদতের ব্যবস্থা, মাদকের কুফল সম্পর্কে আলোচনা, পোষ্টার প্রদর্শন ইত্যাদি ব্যবস্থা রয়েছে ।

১০। বিনোদন সেবাঃ   বন্দীদের  মানসিকভাবে  উজ্জীবিত রাখতে   খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে । এ ছাড়াও বিশেষ দিবসসমূহে উন্নত মানের খাবার সরবরাহ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, খেলাধুলা ও পুরষ্কার বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে । বন্দিদের প্রতিটি ব্যারাকে বিনোদনের জন্য  টিভি দেখা, ক্যারম, লুডু ও দাবা খেলার সুযোগ রয়েছে ।

১১।  অন্যান্য সেবা :      বন্দিদের সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে সাপ্তাহিক নিয়মিত পরিদর্শনের পাশাপাশি সকল কয়েদি ও হাজতি বন্দিদের নিয়ে প্রতি মাসে ০১ বার  দরবার আয়োজন করা হয় । সেখানে বন্দিদের অভিযোগ শোনা হয় এবং বিধি অনুযায়ী সমাধানের উদ্দ্যোগ নেয়া হয় ।

        

 

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter